বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:১০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রামুতে সূর্যের হাসি যুব সংঘ ও প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে এসএসসিতে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা মুক্তি” কক্সবাজার কর্তৃক টেকনাফে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস পালিত টেকনাফের নয়াবাজারে ছুরিকাঘাতে শাহ আলম গুরুতর আহত! শারীরিক নির্যাতন ও মিথ্যা মামলায় হয়রানির প্রতিবাদে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন ভাটারা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি পলাশ, সাধারণ সম্পাদক উল্লাস নাফ মেরিট মাল্টিমিডিয়া স্কুলে ক্লাস পার্টি রোহিঙ্গা সেলিম হত্যা মামলায় হ্নীলার বাবুল মেম্বার গ্রেপ্তার টেকনাফে‘নগদকর্মী’কে হত্যার অভিযোগে ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা টেকনাফে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার টেকনাফ হ্নীলার মহিলা মাদ্রাসার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারের প্রতিবাদ

একটি সরকারী ঘর পেলেই মাথা গুজার ঠাই পাবেন ৮০ বছরের বৃদ্ধা |বাংলাদেশ দিগন্ত

ইমাম হোসেন হিমেল:
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪৮৬ বার পঠিত

কলাপাড়ার মহিপুর ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড উত্তর মনসাতলী মোঃ চাঁন মিয়া হাওলাদার বয়স ৮০ পিতা মোঃ আব্দুল মজিদ হাওলাদার, স্ত্রী মোসাঃ আমেনা বয়স ৬৫, তিন মেয়ে মোসাঃ পিয়ারা, মোসাঃ কোহিনুর মোসাঃ গোলেনুর,সন্তানেরা সবাই বিবাহিত, স্বামী সন্তান নিয়ে আলাদা জীবন যাপন করছেন

ভাঙ্গা ঘরে ৩০ বছর যাবত মানবেতর জিবন যাপন করছেন তারা। মোসাঃ আমেনা বেগম বলেন, আমার বাহিরে কোন যায়গা জমি নেই স্বামী অসুস্থ আমার ঘর নেই এই বর্ষাতে খুব কষ্ট করেছি। এখন শীত শুরু হয়েছে শারারাত নিশিরের পানি টুকটুক করে গায়ে পড়ে কাঁথা গরম হয়না শারারাতে। এই ভাঙ্গা ঘরে অসুস্থ স্বামীকে নিয়ে কোন রকম বেঁছে আছি এখন আর পাড়ছি না বয়স হয়ে গেছে আমাদের। আমার স্বামীর বয়স ৮০ বছর বিভিন্ন রোগে অক্রান্ত চিৎকিসার টাকা নেই। আমার স্বামী এখনো কাজ খুঁজে বেড়ায়,বয়স বেশি কাজ করতে পাড়েনা তাই কেউ কাজ দেয়না। আমি নিজেও কথা বলতে পাড়িনা খুব অসুস্থ আমাদের এখন সরকারী সহযোগীতা খুব ধরকার না খেয়ে থাকতে হয় আমাদের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ১ শতাংশ যায়গায় মধ্যো ছোট একটা দুইচালা ভাঙ্গা ঘরে বসবাস করে আসছেন, অামেনা বেগম উঠানোর কোণে ছাউনি ছারা একটা পাকেঁর ঘর দুটো মাঁটির চুলো দু,চারটা হাড়ি পাতিল ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে চারদিকে। ঘরের বিতারে ডুকলে দেখা যায় উপরের ছাউনির ফাঁক দেখে সূর্যের আলো এসে পড়েছে মেঝেতে এলোমেলো ঘর ছরিয়ে ছিটিয়ে আছে এদিকে ওদিকে দুটো থাল কিছু পাতিল রাখা আছে মেঝেতে। পাশেই ছোট একটা চৌকিঁ সেখানে লক্ষ্য করলে দেখা যায় দুটো বালিশ দুটো ছেরাঁ কাঁথা আশপাশে পূরানো বস্র হয়তবা বয়সের ভারেই এমন আগোছালো ঘর। খুঁজে দেখা যায় টুকটাক কিছু বাজার আছে হয়তবা চার পাঁচদিন খেতে পাড়বে এর পড়ে হয়ত শেষ হয়ে যাবে খাবার। জিবিকার তাগিদে দিনরাত ছুটে চলে মোঃ চাঁন মিয়া কিন্তু কাজ জোটেনা তার।

মোঃ চাঁন মিয়া বলেন,
একটা সরকারি ঘর আশা করছি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আমাকে একটা ঘর দরকার।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!