রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
উখিয়ার মুবিন স্থানীয় পত্রিকা থেকে পেলেন পদন্নোতি এবং বেস্ট কো- অপারেশন সম্মাননা সাবরাং উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্যোগে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের বিজয় সংবর্ধনা প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থীর বয়স ১০৭ বছর! |বাংলাদেশ দিগন্ত প্রকাশিত সংবাদের একাংশের প্রতিবাদ মরজিনা মেম্বার অসুস্থ হয়ে চিকিৎসার জন্য ঢাকায়,সকলের দোয়া কামনা করেছেন টেকনাফে কমিউনিটি পুলিশিং ডে পালিত | বাংলাদেশ দিগন্ত যুবক কে অপহরণ করে বিয়ে করলেন তরুণী |বাংলাদেশ দিগন্ত প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক হস্তান্তর | বাংলাদেশ দিগন্ত ইসলাম ত্যাগ করে দেখেন দুই দিন মন্ত্রী থাকতে পারেন কিনা | বাংলাদেশ দিগন্ত টেকনাফে বিএমএসএফ এর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান |বাংলাদেশ দিগন্ত

টেকনাফবাসীর নিকট আইনজীবী জিয়াবুল আলমের খোলা চিঠি |বাংলাদেশ দিগন্ত

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০
  • ৮১১ বার পঠিত
সাবেক ওসি প্রদীপের প্রদীপনামার বিরোদ্ধে একটি গণশুনানির জন্য টেকনাফবাসীর কাছে খোলা চিঠি।
প্রিয় টেকনাফবাসী
আমরা নানা দাদার কাছ থেকে গল্প শুনেছি। আজকে টেকনাফের সাধারণ মানুষের যে পরিণতি বিগত কয়েক প্রজন্মকে এই ভাবে কঠিন পরিস্থিতির মুখামুখি হতে হয়নি। বিভিন্ন দেশে নানা ধরনের সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে আমরা গিয়েছি, যাচ্ছি৷ কিন্তু কখনোই এমন কিছু আমাদের সবাইকে সমানভাবে প্রভাবিত করেনি৷
টেকনাফে রোহিঙ্গা সংকট আছে। আমাদের চারদিকে ইয়াবা ও মানব পাচার সমস্যায় জর্জরিত।
আমাদের রাজনৈতিক বিভেদ রয়েছে, রোহিঙ্গা জঙ্গিগোষ্ঠীর  উত্থান আমাদের ভাবাচ্ছে৷ আজকে বিশেষ করে ফিলিস্তিন ও ইয়েমেনে ইতিহাসের সবচেয়ে মারাত্মক মানবিক সংকট দেখা দিয়েছে৷ ইউরোপে শরণার্থী সংকট এবং ডানপন্থি উগ্রবাদের উত্থান ঘটছে৷ কিন্তু তারপরও এইসব ইস্যুকে আমরা বৈশ্বিক সংকট না ভেবে আঞ্চলিক  সংকট ধরে নিয়ে দিনের পর দিন নিরলস পরিশ্রম করে এগিয়ে যাচ্ছি।
কিন্তু এখন এমন এক বিপদের সম্মুখীন আমরা, যা আমাদের সবাইকে এক কাতারে নিয়ে এসেছে৷ এখন টেকনাফবাসীর  সমস্যা- ইয়াবা ও রোহিঙ্গা  জঙ্গিগোষ্ঠীর।যেহেতু ওসি প্রদীপ কুমার দাশ হত্যা মামলার আসামী হয়ে জেলে মানুষের কাছ থেকে নির্যাতন হত্যা চাঁদাবাজি মোটামুটি বন্ধ ৷ এই সব সমস্যা মোকাবিলাতেও আমরা আমাদের স্বভাবসুলভ হিংসা-দ্বেষ-স্বার্থপরতা থেকে বের হয়ে আসতে পারিনি৷ আজকে এই মরণনেশা ইয়াবা কোন জাত কূল কোন কিছুর মধ্য সীমাবদ্ধতা নেই। বলতে গেলে এই মরণ নেশা ইয়াবা করোনার চেয়েও ভয়াবহ।এই ইয়াবার সংস্পর্শ যাদের পরিবারে ঘটেছে পুরো পরিবারকে শেষ করেছে। তাই আমরা চাই এই মরণ নেশা ইয়াবা দমন হউক।
প্রিয় টেকনাফবাসী
আপনারা নিশ্চয় জানেন আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক। আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে আমাদের কিছু মৌলিক অধিকার রয়েছে। যাহা সংবিধানের তৃতীয় ভাগের অনুচ্ছেদ ২৬..৪৪ বর্ণিত। যে অধিকার সংবিধানের ১৪১ক,খ,গ এর বিশেষ পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রের অভিভাবক স্হগিত করতে পারে। অন্যথায় সেই অধিকার কেউ খর্ব করতে পারেনা।কিন্ত ওসি প্রদীপ প্রতিদিন বন্ধুক যুদ্ধ নামে তার দায়িত্বে থাকার অবস্থায় ২০৪ জন মানুষ কোন আইনে হত্যা করেছে?  তাকে এই হত্যাকান্ডের জন্য আইনের আওতায় এনে জবাবদিহিতা করা দরকার।
প্রিয় টেকনাফবাসী
বিগত দুই বৎসরে ওসি প্রদীপ কুমার আমাদের মৌলিক অধিকার অহরহ খর্ব করেছে। কারণ দেশের মানুষ অপরাধ করলে অর্থাৎ মাদক ব্যাবসা করলে তার বিরোদ্ধে দেশের আইন আদালত আছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে ১৯৯০ সালের অর্থাৎ বিগত তিন দশকের প্রাচীন আইন সংশোধন করে ২০১৮ সালে নতুন আইন পাশ করেন। সেই আইনোতো বিচার বহ্নিভূত হত্যাকান্ড অনুমোদন করেন। সংবিধানের যে ১৮ টি মৌলিক অধিকার কখনো খর্ব করেনি। কিন্ত কোন আইনের অধীনের আমাদের দিনের পর দিন মৌলিক অধিকার লঙ্গন করেছে।? মানুষ মারার পর প্রতিদিন গণমাধ্যমে প্রচার করা হয় বন্ধুক যুদ্ধ। আপনি জানেন এই বক্তব্য ফৌজদারি অপরাধ। আপনার বিরোদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা করতে বাধা নেই।
প্রিয় টেকনাফের জনসাধারণ
আমাদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কেউ আসুক বা নাই আসুক আমরা সকলে ঐক্য বদ্ধ হয়ে অন্যায়ের বিরোদ্ধে সংগ্রাম করে আমরা আমাদের মৌলিক এবং মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় দৃড় প্রত্যায় নিয়ে এগোতে হবে ।এখানে সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৭ অনুযায়ী প্রজাতন্ত্রের মালিক জনগণ কোন আমলা নয়।
 আমি জানি, এই যুদ্ধে আমরা জয়ী হবো৷ আর সে বিজয়ে আমাদের নায়ক হবেন আমরা সাধারণ জনগণ যারা অন্যায় সংগ্রামের বিরোদ্ধ প্রতিবাদ করেছি।৷ সে বিজয়ে আগাম অভিনন্দন ও আমার পক্ষ থেকে স্যালুট রইলো৷ যেভাবে বিশ্বজুড়ে নিজের ও নিজের পরিবারের প্রাণ বিপন্ন করে আপনারা মানুষের প্রাণ বাঁচাতে আগামী দিনের সংগ্রামের দৃড় সংকল্পবদ্ধ থাকব।
পাশাপাশি এই কথা মনে রাখবেন কোন অফিসারের জন্মদিন হলে আপনারা জন্মদিনের শুভেচ্ছা এবং থানায় কোন অফিসার আসলে অভিনন্দন জানানো থেকে বিরত থাকবেন। অভিনন্দন কিংবা শুভেচ্ছা জানালে আপনাদের মান মর্যাদা বাড়ে না বরং কমে। কারণ আপনারা প্রজাতন্ত্রের মালিক। এই রাষ্ট্রের আপনারা সব কিছুর অংশিদার।
প্রিয় টেকনাফবাসী
আইনজীবী  হিসেবে আমি বিশাল দায় অনুভব করি অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের, সত্যও ন্যায় প্রতিষ্ঠার৷ আমি গর্বও বোধ করি, একই সঙ্গে বিশ্বজুড়ে যেভাবে মৌলিক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার ওপর খড়গ নেমে আসছে, তাতেও শঙ্কা বোধ করি৷ কিন্তু এই প্রথম আমার আফসোস হচ্ছে, আমি আইনজীবী হয়ে বেশ লেখালেখি করেছি কিন্ত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কোন ভূমিকা পালন করতে পারেনি।যাইহোক আমার দায়বদ্ধতা অনুভব করে আপনাদের জন্য দুটি তখন থেকে লিখেছি।তবে আপনাদের উপকারে আসছে কিনা জানিনা?
সম্মানিত টেকনাফের জনপ্রতিনিধি বৃন্দ
আমরা আপনাদেরকে নেতা বানিয়েছি আমাদের অধিকার নিয়ে কথা বলার জন্য। আপনাদের চাউল ডালের জন্য নয়। আমরা কখনো গরিব ছিলাম না এবং আমরা গবির নয়। আল্লাহ আমাদেরকে অপূরন্ত দিয়েছে। আমাদের সাগর নদী এবং পাহাড় রয়েছে। যে গুলো জীবিকা উপার্জনের অন্যতম উৎস। সুতরাং আপনারা আমাদের অধিকার নিয়ে কথা বলবেন। আর আপনারা যে চাউল ডাল দিচ্ছেন, সেইগুলা রাষ্ট্রের দায়িত্ব।যাহা সাংবিধানের ৮/১৫ অনুচ্ছেদে বলা আছে। সেই দায়িত্ব আপনারা পালন করছেন। সুতরাং আপনারা মৌলিক চাহিদার পাশাপাশি মৌলিক অধিকার নিয়ে কথা বলবেন। ভবিষ্যতে আপনাদের কাছ থেকে এই আশা রাখি
★★★সম্মানিত জনপ্রতিনিধি বৃন্দ
টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপের জন সাধারণের যে অভিযোগ আপনারা সবই অবগত। এই সম্পর্কে আমার বলার কিছু নেই।দয়া করে সাধারণ মানুষের অভিযোগ শুনার জন্য একটি গণশুনানির ব্যাবস্হা করেন। এতে করে আজকের মত ভবিষ্যতে আর লোমহর্ষক নির্যাতনের স্বীকার হতে হবেনা। আমার দৃড় বিশ্বাস এই ব্যাপারে আপনারা সঠিক সময়ে যুক্তিক পদক্ষেপ নিবেন।
পরিশেষে একটি ইয়াবা মুক্ত সমাজ জাতিকে উপহার দেওয়ার চেষ্টা করি।প্রয়োজনের সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলি। ভাল থাকুন, সুস্হ থাকুন। আর জেন ওসি প্রদীপের আবির্ভাব না হয়, সেই লক্ষে সব সময় অন্যায়ের বিরোদ্ধে প্রতিবাদ এবং আইনি প্রতিরোধ গড়ে তুলব। ইনশাআল্লাহ আমাদের বিজর অনিবার্য। পরিশেষে,
“ওরা আমার ছেলেটাকে মেরে ফেলেছে হিরোশিমায়। আমার মাকে খুন করেছে জেরুজালেমের রাস্তায়। আমার বোনটা এক সাদা কুত্তার বাড়িতে বাঁদি ছিলো। তার প্রভু তাকে ধর্ষণ করে মেরেছে আফ্রিকাতে। আমার বাবাকে হত্যা করে মেরেছে ভিয়েতনামে। আর আমার ভাই, তাকে ফাঁসীতে ঝুলিয়ে মেরেছে ওরা। কারণ সে মানুষকে ভীষণ ভালোবাসতো।” – জহির রায়হান হাফেজ।
ভূল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।
জিয়াবুল আলম
আইনজীবী ও লেখক, চট্রগ্রাম জর্জ কোর্ট

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!