মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আত্মসমর্পণকারী ইউনুছের বাড়ি থেকে ইয়াবা ও ফেন্সিডিল উদ্ধার!_ নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ফয়েজুল ইসলাম মেম্বার রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নিপাত যাক,বাঙালি জাতি মুক্তি পাক এই স্লোগান নিয়ে বিশাল মানববন্ধন প্রেম করে তুমি প্রতিশোধ নিতে চেয়েছো?প্রয়াত যুবতীর চিঠি! ওব্যাট-প্রান্তিক লার্নিং সেন্টারের শিক্ষার্থীরা পেলো শীতবস্ত্র |বাংলাদেশ দিগন্ত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে পেকুয়ায় সাংবাদিকদের মানবন্ধন |বাংলাদেশ দিগন্ত রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের দাবিতে টেকনাফে ছাত্রলীগের মানববন্ধন টেকনাফ পৌরসভা নির্বাচনে মোহাম্মদ ইসমাইলের মেয়র প্রার্থীতা বৈধ করেছেন হাইকোর্ট মোটরসাইকেল প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী খোকনের নির্বাচনি অফিস উদ্বোধন হোয়াইক্যংয়ে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান-মেম্বারদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন |বাংলাদেশ দিগন্ত

টেকনাফ থানাকে কলেজ, পুলিশকে কলেজ বন্ধু মনে করবেন না:আক্তার হোছাইন |বাংলাদেশ দিগন্ত।

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০
  • ৫১০ বার পঠিত

ওসি প্রদীপ দাসের বিদায় হয়েছে অনেকের লেগামহীন অাফসোসের যেন ইতি হচ্ছেনা,খুব সম্ভবত ২০১৮ সালে ওসি এই থানাস্হ হয়েছে তখনও ফেসবুকে অভিনন্দনের বন্যা করেছিল একশ্রণি তারা বুঝাতেচেয়ছিল প্রদীপ ইয়াবা নির্মুল করবেই বাট বাস্তব চিত্র ভিন্ন,ওসি যদি বাস্তবেই ততটা তৎপর হতো তাহলে এতোদিনে ইয়াবা ব্যাবসায়ী থাকতোনা এখন ব্যাবসায়ী ঠিকই রয়েছে হয়তো অাগের মতো ইয়াবা বহনকারী গুলো নাই,সভা সমাবেশে যেভাবে বক্তৃতা দিতো ইয়াবার বিরুদ্ধে মনে হয় কৌশলে ইয়াবার পক্ষেরই একজন। ২০১৮ সাল থেকে ধরলে প্রায় ২ বছর এতোদিন তো মাদক থাকার কথা নয়।

ওসি প্রদীপ যদি এতোই ইয়াবার বিরুদ্ধে তৎপর তাহলে সেনাবাহিনীর কাছে ৫০ পিছ ইয়াবা কেমনে পেল?এগুলোকে কি সাজানো গোছানো নাটক বলা যায় না,বাস্তবতা হচ্ছে টেকনাফের মানুষের সাথে প্রতিনিয়ত এই রকমই অাচরণ করেছে বিদায় বেপরোয়া হয়ে সেনাবাহিনীকেও ৫০ পিছ ইয়াবা দিয়ে ক্রস ফায়ার দিতে দ্বিধা করেননি। মুলত এই চরিত্রটাই তার অাসল কৌশল ছিল।

নতুন ওসিকে যেভাবে অভিনন্দন জানানো হচ্ছে, মনে হচ্ছে এখানে অাবার এবিএমএস দোহাকেও প্রদীপ বানাবে, দয়া করে থানাকে কলেজ বানাবেন না, পুলিশকে কলেজ বন্ধু ভাববেন,না, স্হানীয় দালালরা দালালগিরি দহরম মহরম বাদ দেন।থানাকে কলেজ, পুলিশকে কলেজ বন্ধু ভাবা বাদ দেন, অাপনারা যারা ফাইল একটা নিয়ে সকালে থানায় ঢুকে সন্ধায় বাহির হতেন তারা পুলিশের কান ভারি করতেন এগুলো থেকে বাহির হয়ে অাসুন। অামাদের অাচার অাচরণে প্রদীপ অাজ কিলার হয়েছে।

অামরা জনগণের কাতারে থাকি পুলিশকে পুলিশের জায়গায় থাকতে দেন অাপনি যদি সত্যিকার অর্থে মাদক নির্মুলে পুলিশকে সাহায্য করতে চান? তাহলে জনগণের কাতার থেকে সাহায্য করুন দালালগিরি নয়।

অনেকে ইয়াবা রুখে দেওয়ার জন্য ওসি হিসেবে একমাত্র প্রদীপকে খুজে পাই এইরকম হীনমনতার জোয়ারে না ডুবে ইতিবাচক হয়ে নতুন ওসিকে সাহায্য করুন দালালদের সামাজিক ভাবে বয়কট করুন, জনগণের কাতার থেকে যদি অামরা সচেতন হয়ে পুলিশকে হেল্প করি তাহলে অার জুলুম নির্যাতন হবে বলে আশা করি না।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!