সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন

দল-মাজহাব-মতবাদ নির্বিশেষে সম্মিলিতভাবে খেলাফত উদ্ধারে এগিয়ে আসতে হবে : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : বাংলাদেশ দিগন্ত
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১২ মার্চ, ২০২১
  • ৪৬৩ বার পঠিত

বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে স্বচ্ছ, অন্তর্ভুক্তিমূলক, অংশগ্রহণমূলক ও জনকল্যাণমূলক সরকার ব্যবস্থা ছিলো খেলাফত সরকার ব্যবস্থা। দীর্ঘ ১৩ শত বছর ধরে এই সরকার ব্যবস্থা বিশ্বকে নেতৃত্ব দিয়েছে। এই সময়ের ধর্মীয় সম্প্রীতি ছিলো বিশ্বের ইতিহাসের সবচেয়ে সৌহার্দপূর্ণ। ধর্ম, বর্ন, সামাজিকতা বা অঞ্চলকেন্দ্রীক বৈষম্য ছিলো শুণ্যের কোঠায়। বিশ্বের জিডিপির পরিমান কম থাকলেও আর্থিক বৈষম্য ছিলো না বললেই চলে। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খেলাফত পুনপ্রতিষ্ঠার জন্য নিয়মতান্ত্রিক কাজ করে যাচ্ছে। এবং এই মহৎকাজে সকলকে সম্মিলিত কাজ করার আহবান জানায়।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ঢাকা মহানগর কতৃক আয়োজিত “খেলাফত পতনের একশ বছর;উম্মাহর সংকট ও সম্ভবনা শীর্ষক এক পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান উপর্যুক্ত কথা বলেন।

ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক কে এম শরীয়াতুল্লাহর পরিচালনায় উক্ত পর্যালোচনা সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে সংগঠনের সহকারী মহাসচিব মাওলানা ইমতেয়াজ আলম বলেন, খেলাফত সরকার ব্যবস্থা কেবল মানুষের জন্যই নয় বরং প্রাকৃতির জন্যও ছিলো কল্যাণকর। খেলাফত সরকার প্রকৃতির সাথে “প্রতিপালনের সম্পর্ক” রক্ষা করে চলেছে। ফলে প্রকৃতি ছিলো সুরক্ষিত।

সভাপতির বক্তব্যে সংগঠনের সহকারী মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, আরবী হিসেবে ১৪৪২ এর রজব মাসেই খেলাফতের পতন হয়৷ এই একশত বছরে এতো বেশি রক্তপাত হয়েছে, এতো মানুষকে বাস্তুহারা করা হয়েছে তার নজীর মানব ইতিহাসে নাই। বিশ্বের সামগ্রিক জিডিপি বাড়লেও বৈষম্য বেড়েছে তার চেয়ে বেশি। বিশ্বের জলবায়ু পরিস্থিতি আমরা সবারই জানা। জলবায়ু পরিস্থিতি এতোটাই খারাপ যে, আগামী ৫০ বছরের মধ্যে পৃথিবীর বড় একটি অংশ সমুদ্রে ডুবে যাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম আতিকুর রহমান বলেন, খেলাফত সরকার ব্যবস্থা মানব জাতীর জন্য একটি আশীর্বাদ ছিলো। আর তার পতন বিশ্বের জন্য অভিশাপ। বিশ্বের এই আশির্বাদ গত একশত বছর ধরে আমাদের মাঝে নাই। এর চেয়ে দুঃখজনক বিষয় আর কিছু হতে পারে না।

পর্যালোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বরকাতুল্লাহ লতিফ ও কেন্দ্রীয় সহ প্রচার ও দাওয়াহ বিষয়ক সম্পাদক শেখ ফজলুল করীম মারুফসহ নগর নেতৃবৃন্দ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!