সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০১:৫৫ অপরাহ্ন

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে সাংবাদিক ও মিড়িয়াকে দেখে নেয়ার হুমকী |বাংলাদেশ দিগন্ত

নিজস্ব সংবাদদাতা:
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৩৫৯ বার পঠিত

 

ছবিটি হুমকীদাতার 

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ঢাকা থেকে প্রকাশিত জাতীয় দৈনিক আজকের বসুন্ধরা পত্রিকার নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি ও দক্ষিণ এশিয়ায় সর্ববৃহৎ সাংবাদিক সংগঠন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের সুবর্ণচর উপজেলা শাখার সদস্য সচিব মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন এবং দেশের গণমাধ্যমকে দেখে নেয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার (১৭ ফ্রেব্রুয়ারি) সাংবাদিক দেলোয়ার হোসেনকে মোবাইল ফোনে হুমকি দেয়ার এ ঘটনা ঘটে। এ সময় সাংবাদিক দেলোয়ার হুমকির কথোপকথনটি মোবাইলে রেকর্ড করেন। সাগরিকা সমাজ উন্নয়ন সংস্থার নলেরচর আল-আমিন বাজার ব্রাঞ্চ ম্যানেজার মাজহারুল ইসলাম সাংবাদিক দেলোয়ার ও গণমাধ্যমকে দেখে নিবে বলে এ হুমকি প্রদান করে।
হুমকির কল রেকর্ড শুনে জানাযায়, উক্ত এনজিও ম্যানেজার,স্থানীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ও সুবর্ণচর উপজেলার ২নং চরবাটা ইউনিয়নের মধ্যচরবাটা গ্রামের স্থানীয় কাজল মার্কেটের ব্যাবসায়ী কাজলের পুত্র এনজিও কর্মী নামধারী উল্লেখিত সন্ত্রাসী মাজাহারুল ইসলাম মোবাইল ফোনে সাংবাদিক মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন ও মিড়িয়াকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিতে থাকে।এ সময় সন্ত্রাসী মাজাহারুল ইসলাম বলে ‘তোর মত কত সাংবাদিক, পত্রিকার ও টেলিভিশন আমার পকেটে থাকে।আমার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয় নিয়ে তোকে ফোন করার সাহস কে দিয়েছে’!
হুমকির কারণ হিসেবে জানাযায়,সাগরিকা সমাজ উন্নয়ন সংস্থার নলেরচর জনতা বাজার ব্রাঞ্চ থেকে স্থানীয় শাহাজান নামের এক ব্যাক্তি ঋণ নিয়ে তার বসতবাড়ি স্থানীয় যুবলীগ নেতা হাসেম মাঝির নিকট বায়না করে রাতের অন্ধকারে পালিয়ে যায়।শাহাজানের বসতবাড়ি হাসেম মাঝি ক্রয় করবে বলে জানতে পারে সাগরিকা কর্মকর্তারা।পরে এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিদের সাথে আলাপকালে জানাযায় হাসেম মাঝি বাড়ি ক্রয় করার জন্য মাত্র ১ লক্ষ টাকা বায়না করেছেন। বায়নার টাকা নিয়ে সে পালিয়ে যায়।হাসেম মাঝিকে সাগরিকা সমাজ উন্নয়ন সংস্থা বলে যে শাহাজানের বাড়ির দাবীদার এখন তারা।পরে সমাজের অনেকের উপস্থিতে হাসেম মাঝি বলেন আমার নিকট এখন কোন টাকা নেই,আমি আমার টাকার বিষয়ে বুঝবো। আপনারা তার টাকা যেভাবে পারেন নেন।হাসেম মাঝিকে জনতা বাজার সাগরিকা ব্রাঞ্চ ম্যানেজার আবুল বাশার ও মাঠ কর্মী তৌহিদ বাড়ির কাজগপত্র হাসেম মাঝির নামে করে দিতে সহায়তা করবে মর্মে হাসেম মাঝিকে সাগরিকা কর্মকর্তারা ৩ লক্ষ টাকার একটি ঋণ দেন।কিছু দিন ঋণের কিস্তি দেওয়ার পর হাসেম মাঝি জানতে পারে যে, সাগরিকা এনজিও নিকট উক্ত বাড়ির উপযুক্ত কোন কাগজপত্র নেই। বিষয়টি শুনে হাসেম মাঝি সাগরিকার ঋণ দেওয়া বন্ধ করে দেয়। এ নিয়ে উক্ত সন্ত্রাসী ম্যানেজার মাজহার ঋণী ব্রাঞ্চের সলা-পরামর্শে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি হাসেম মাঝীকে ফোন করে টাকা না দিলে তার মেয়ের আসছে বিয়ের অনুষ্ঠানে হামলা করবে বলে হুমকি দেয়। হুমকির বিষয়টি হাসেম মাঝী আজ সাংবাদিক দেলোয়ারকে জানানোর পর সাংবাদিক দেলোয়ার নিজ ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বার ০১৮১৫-১৯০৫৪৩ থেকে উক্ত অভিযোগের ব্যাপারে মাজহারের বক্তব্য নেয়ার জন্য তার মোবাইল নাম্বার ০১৮৩০-১০১০৪৬
তে ফোন করে তার বক্তব্য জানতে চাইলে সে উল্লেখিত হুমকি প্রদান করে।
উল্লেখ্য মাজহার এনজিও কর্মীর আড়ালে এবং দলীয় প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছে। কিছুদিন আগে সুবর্ণচরের আলোচিত সিটি ব্যাংক কর্মকর্তা কামাল মিয়ার বাড়ীতে ন্যাক্কার জনক সন্ত্রাসী হামলার নায়ক ছিল এ মাজহারুল ইসলাম। তার বিরুদ্ধে অপহরণসহ বিভিন্ন অপকর্মের মামলা হয়েছিল বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে বক্তব্য জানার জন্য সাগরিকা সমাজ উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক সাইফুল ইসলাম সুমনের মুঠো ফোনে ( যাহার নাম্বার ০১৮৬৫-০৪১২০২) একাধিকবার ফোন করলেও তার ফোন রিসিভ হয়নি ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs