বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন

পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের চুরি হওয়া সাড়ে ২২ লাখ টাকা লামা সার্কেল রেজওয়ানুল ইসলাম এর সহযোগীতায় আসামি সহ রাঙ্গামাটি থেকে উদ্ধার

আব্দুল হাকিম:
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৮ জুলাই, ২০২০
  • ৭২১ বার পঠিত

গত সোমবার (২৭ জুলাই) আলীকদম উপজেলার আমার বাড়ী আমার খামার প্রকল্পের (পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক) চুরি হওয়া সাড়ে ২২ লাখ টাকার ১২ লাখ টাকা সোমবার সকাল ১০টায় লামা হতে উদ্ধার করেছে পুলিশ। লামা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ রিজওয়ানুল ইসলাম ও লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের সহায়তার আলীকদম থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ কাজী রকিবউদ্দিন সঙ্গীয় পুলিশ সদস্য নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে।

লামা সার্কেলের সহকারী সিনিয়র পুলিশ সুপার ( এএসপি) মোঃ রেজওয়ানুল ইসলাম জানান,
এসপি জেরিন আখতার,( বিপিএম) পুলিশ বান্দরবান স্যার এর দিক নির্দেশনা অভিজান পরিচালনা করেন এডিশনাল এস পি রাঙ্গামাটি সদর সার্কেল, জনাব তাপস রঞ্জন ঘোষ,
এবং আই সি গজালিয়া পুলিশ ফাঁড়ি ইন্সপেক্টর বিল্লাল হোসেন সহযোগীতায় টাকা সহ চুরকে আটক করতে সক্ষম হয়।

আরও জানান, ঘটনার মূল হোতা আলীকদম আমার বাড়ী আমার খামার প্রকল্পের (পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক) নৈশ প্রহরী উসাইসুই মার্মাকে আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে তার অবস্থান নিশ্চিত হয় পুলিশ। পরে রাঙ্গামাটি সদর সার্কেল ও সদর থানার সহযোগিতা চাওয়া হয়। বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে সোমবার ভোরে সদর থানার পুলিশ রাঙ্গামাটি জেলা সদরের রিজার্ভ বাজার এলাকায় শান্তি আবাসিক হোটেলে অভিযান চালায়। অভিযানে চুরির ১০ লাখ ৪৩ হাজার টাকা সহ নৈশ প্রহরী উসাইসুই মার্মাকে আটক করে। পরে তার বক্তব্যের সূত্র ধরে লামা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের মীম ফিলিং স্টেশনের শাহীন ডেকোরেশন দোকানের গোডাউন থেকে একটি কালো ব্যাগে রাখা ১২ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। এসময় চুরির টাকা রাখার দায়ে পুলিশ মোঃ শাহীনকে (৩২) গ্রেফতার করে। সে লামা পৌরসভার পার্শ্ববর্তী বমু বিলছড়ি ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মাইট্টটিলা এলাকার মৃত আবু তাহের এর ছেলে।

জানা যায়, রোববার দুপুরে আলীকদম পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের নৈশ প্রহরী উসাইসুই মার্মা ব্যাংকের সাড়ে ২২ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেলে রোববার বিকেলে আলীকদম থানায় মামলা করে আমার বাড়ী আমার খামার প্রকল্পের (পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক) সমন্বয়ক ফেরদৌসী আক্তার। তারপরে টাকা উদ্ধারে মাঠে নামে পুলিশ। অবশেষে সোমবার ভোরে তাকে রাঙ্গামাটি জেলা সদরের রিজার্ভ বাজার এলাকার শান্তি আবাসিক হোটেল থেকে ১০ লাখ ৪৩ হাজার টাকা সহ আটক করে রাঙ্গামাটি সদর থানার পুলিশ। লামা হতে ১২ লাখ ও উসাইসুই মার্মার কাছ থেকে ১০ লাখ ৩৪ হাজার টাকা উদ্ধার হয়। বাকী ১৬ হাজার টাকা সে খরচ করেছে বলে পুলিশকে জানায়। উসাইসুই মার্মার লামা উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের তুলাতলি এলাকার বাসিন্দা।

তবে এই ঘটনায় আলীকদম আমার বাড়ী আমার খামার প্রকল্পের (পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক) সমন্বয়ক ফেরদৌসী আক্তার ও মাঠ সহকারী সাইদুল হাসানের যথেষ্ট দায়িত্বে অবহেলা রয়েছে বলে মনে করেন পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের সাধারণ সদস্যরা। তাদের দায়িত্বে অবহেলার কারণে এতগুলো টাকা চুরির মত ঘটনা ঘটেছে।

১০ লাখ ৩৪ হাজার টাকা সহ উসাইসুই মার্মা রাঙ্গামাটিতে আটক ও লামা হতে ১২ লাখ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন আলীকদম থানার অফিসার ইনচার্জ কাজী রকিব উদ্দিন বলেন, দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, রবিবার (২৬ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টা ৩০মিনিটে টাকা নিয়ে উধাও হয় উসাইসুই মার্মা। দুপুর পেরিয়ে গেলেও সে না আসায় উক্ত অফিস কর্মকর্তারা দুপুর ২টার পর খোঁজাখুঁজি শুরু করে এবং অর্থ লোপাটের বিষয়টি নিশ্চিত হয়। আমার বাড়ী আমার খামার প্রকল্পের কম্পিউটার অপারেটর শরিফুল ইসলাম জানান, টাকা উত্তোলনের দায়িত্ব নৈশ প্রহরীকে দেওয়া হয়েছিল। সাথে মাঠ সহকারী সাইদুল হাসান কে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে দুইজনেই অফিসে আসার কথা থাকলেও ব্যক্তিগত কাজে সদর হিন্দু পাড়ায় থেকে যান সাইদুল হাসান এবং নৈশ প্রহরীকে টাকা নিয়ে অফিসে যেতে বললেও তিনি অফিসে না এসে টাকা নিয়ে উধাও হন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!