মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ১০:০৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আত্মসমর্পণকারী ইউনুছের বাড়ি থেকে ইয়াবা ও ফেন্সিডিল উদ্ধার!_ নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ফয়েজুল ইসলাম মেম্বার রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নিপাত যাক,বাঙালি জাতি মুক্তি পাক এই স্লোগান নিয়ে বিশাল মানববন্ধন প্রেম করে তুমি প্রতিশোধ নিতে চেয়েছো?প্রয়াত যুবতীর চিঠি! ওব্যাট-প্রান্তিক লার্নিং সেন্টারের শিক্ষার্থীরা পেলো শীতবস্ত্র |বাংলাদেশ দিগন্ত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে পেকুয়ায় সাংবাদিকদের মানবন্ধন |বাংলাদেশ দিগন্ত রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের দাবিতে টেকনাফে ছাত্রলীগের মানববন্ধন টেকনাফ পৌরসভা নির্বাচনে মোহাম্মদ ইসমাইলের মেয়র প্রার্থীতা বৈধ করেছেন হাইকোর্ট মোটরসাইকেল প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী খোকনের নির্বাচনি অফিস উদ্বোধন হোয়াইক্যংয়ে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান-মেম্বারদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন |বাংলাদেশ দিগন্ত

প্রায় তিন বছর পর কক্সবাজারে জন্ম-মুত্যু নিবন্ধন চালু হয়েছে |বাংলাদেশ দিগন্ত

বিশেষ প্রতিবেদক:
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৪৯ বার পঠিত

রোহিঙ্গাদের কারণে প্রায় তিন বছর কক্সবাজার জেলায় বন্ধ থাকা জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রম ফের চালু হয়েছে।

৩১ আগস্ট থেকে প্রাথমিকভাবে জেলার ১২টি ইউনিয়ন পরিষদে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক শ্রাবস্তি রায়।

নিবন্ধন কার্যক্রম চালু হওয়া ইউনিয়নসমূহ হলো- টেকনাফের হোয়াইক্ষ্যং, উখিয়ার হলদিয়াপালং এবং রত্নাপালং।

কক্সবাজার সদরের ১০টির ইউনিয়ন ঝিলংজা, পিএমখালী, ভারুয়াখালী, চৌফলদন্ডী, জালালাবাদ, খুরুস্কুল, ইসলামাবাদ, পোকখালী এবং ঈদগাঁও।

তবে, মঙ্গলবার (০১ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টা পর্যন্ত ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং সচিবের জন্মনিবন্ধন অনলাইনে না থাকায় পাসওয়ার্ড দেওয়া হয়নি।

তবে, তা দ্রুতই সমাধান হবে বলে জানান কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ মাহমুদ উল্লাহ মারুফ।

২০১৭ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার জেলায় বন্ধ করে দেয়েছিল সরকার। দীর্ঘ দুই বছর ১১ মাস পর নিবন্ধন কার্যক্রম চালু হলে জেলাবাসী আনন্দিত হয়েছে।

স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক শ্রাবস্তি রায় জানান, কক্সবাজারবাসীর দীর্ঘদিনের কাংখিত জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রম ১২টি ইউনিয়নে ৩১ আগস্ট থেকে চালু করা হয়েছে।

৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ ও ৪টি পৌরসভার মধ্যে প্রথম ধাপে ১২টি ইউনিয়ন পরিষদে কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে।

নিবন্ধন পাওয়ার প্রক্রিয়াঃ
জন্মনিবন্ধনের জন্য প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবরে আবেদন করতে হবে। সেগুলো উপজেলা জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন যাছাই বাচাই কমিটির কাছে উপস্থাপন করবে। যাছাই করে সঠিক প্রমাণ হলে পুণরায় অনুমোদন দিয়ে পরিষদে পাঠাবে। তারপর আবেদনকারীর হাতে নিবন্ধন সনদ দিবে পরিষদ।

প্রতিটি উপজেলায় শক্তিশালী বাছাই কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা সবদিক বাছাই করে চূড়ান্ত করে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদান করবেন।

ইতোমধ্যে ১২টি ইউনিয়ন পরিষদের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণের হাতে পাসওয়ার্ড পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তারা ইউনিয়ন পরিষদের প্রোভাইডারদের হাতে তা প্রদান করবেন। উক্ত ইউনিয়ন পরিষদসমূহে এখন থেকে জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে পারবেন স্থানীয় জনসাধারণ।

গত শুক্রবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে একটি সভায় জেলার সকল ইউনিয়ন পরিষদের জন্য লাপটপ, মডেম এবং ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস দেয়া হয়।

এদিকে, নিবন্ধন কার্যক্রম যাতে স্বচ্ছতার সাথে পরিচালিত হয় এবং কোন রোহিঙ্গা যেন নিবন্ধনভূক্ত হতে না পারে সে বিষয়ে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক শ্রাবস্তি রায়।

রোহিঙ্গাদের জন্মনিবন্ধন সনদ দিলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে জেল জরিমানাসহ কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!