রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
টানটান উত্তেজনায় শেষ হল শেখ রাসেল গোল্ডকাপ;বিজয়ীদের পুরষ্কার তুলে দেন অতিথিগণ টেকনাফে মুক্তি কক্সবাজার কর্তৃক বাস্তবায়িত প্রকল্পের উপকারভোগীদের মধ্যে প্রশিক্ষণ পরবর্তী নগদ অর্থ সহায়তা বিতরণ টেকনাফে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন অভাবনীয় সফলতায় মেম্বার এনামের প্রতিষ্ঠিত বালিকা মাদ্রাসা টেকনাফে “অক্সফাম” কর্তৃক ভাউচার প্রোগ্রামের মাধ্যমে বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ “মুক্তি” কক্সবাজার কর্তৃক উপকারভোগীদের মাঝে কৃষি উপকরণ ও নগদ টাকা বিতরণ “বাংলাদেশ সমতা ঐক্য পরিষদ’র কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী শাখার তৃতীয় মেয়াদে কমিটি গঠিত “মানবাধিকার দিবস” উপলক্ষে টেকনাফে কোস্ট ফাউন্ডেশনের সেমিনার রামুতে সূর্যের হাসি যুব সংঘ ও প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে এসএসসিতে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা মুক্তি” কক্সবাজার কর্তৃক টেকনাফে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস পালিত

মাদ্রাসার জমি দখলের পাঁয়তারা,যুবলীগ নেতার বিরোদ্ধে সুবর্ণচরে প্রতিবাদ ও মানবন্ধন  |বাংলাদেশ দিগন্ত

নোয়াখালী প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪৮৪ বার পঠিত
সুবর্ণচর উপজেলার চর ওয়াপদা ইউনিয়নের চর বৈশাখী গ্রামে যুব লীগ নেতা কর্তৃক জামেয়া ইসলামীয়া মাদ্রাসা ও এতিম খানা ভাংচুর ও জমি দখলের পায়তারার অভিযোগ উঠেছে। প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন ছাএ-শিক্ষক।
সোমবার (১১ জানুয়ারী) সকাল ১০ টায় মাদ্রাসা পরিচালকের নেতৃত্বে প্রতিবাদ পরবর্তী মানববন্ধন শুরু হয়।এতে মাদ্রাসার শিক্ষক,ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকাবাসীরা অংশগ্রহণ করেন।
মানববন্ধনে মাদ্রাসার পরিচালক মুফতী আবুল খায়ের বলেন,স্থানীয় জোৎতার দখলদার আনছল হক মিয়ার নির্দেশে তার ছেলে যুবলীগ নেতা নুর ইসলাম,ছাত্রলীগ নেতা মফিজুর রহমান,তাজুল ইসলাম ও ফখরুল ইসলাম দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রবিবার (১০ জানুয়ারী) দুপুর দেড়টার দিকে মাদ্রাসায় হামলা চালায়।হামলাকারীরা মাদ্রাসার মহিলা হোস্টেলসহ দু’টি কক্ষে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। হামলার সময় মহিলারা বাধা দিলে তাদেরকে মারধর করে এমনকি কোলের শিশুও তাদের আঘাত থেকে পায় নি।
পরিচালক আরও জানান,মাদ্রাসাটি বর্তমান জায়গায় প্রায় ১৭ বছর যাবত দ্বীনি শিক্ষা দিয়ে আসছে। মাদ্রাসার জমিটুকু মুফতী আবুল খায়েরের নিজ নামে বন্দোবস্তকৃত। অপর দিকে যুবলীগ নেতা নুর ইসলাম বলেন,মাদ্রাসার সব জমি আমরা ফি সাবিলিল্লাহ দিয়ে আমরা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করি।এমনকি মাদ্রাসার পাশে প্রস্তাবিত থানারহাট কলেজের জন্যও একশত শতাংশ জমি দাতা হিসেবে আমরা দিয়েছি। এই মুফতি চাই না এখানে কলেজ প্রতিষ্ঠা হোক। তাই সে কলেজে যাতায়াতের সড়কের উপর প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।
চর জব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জিয়াউল হকের নিকট জানতে চাওয়া হলে, তিনি বলে এই ব্যাপারে লিখিত বা মৌখিক কোনো অভিযোগ পায়নি।অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!