রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
টানটান উত্তেজনায় শেষ হল শেখ রাসেল গোল্ডকাপ;বিজয়ীদের পুরষ্কার তুলে দেন অতিথিগণ টেকনাফে মুক্তি কক্সবাজার কর্তৃক বাস্তবায়িত প্রকল্পের উপকারভোগীদের মধ্যে প্রশিক্ষণ পরবর্তী নগদ অর্থ সহায়তা বিতরণ টেকনাফে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন অভাবনীয় সফলতায় মেম্বার এনামের প্রতিষ্ঠিত বালিকা মাদ্রাসা টেকনাফে “অক্সফাম” কর্তৃক ভাউচার প্রোগ্রামের মাধ্যমে বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ “মুক্তি” কক্সবাজার কর্তৃক উপকারভোগীদের মাঝে কৃষি উপকরণ ও নগদ টাকা বিতরণ “বাংলাদেশ সমতা ঐক্য পরিষদ’র কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী শাখার তৃতীয় মেয়াদে কমিটি গঠিত “মানবাধিকার দিবস” উপলক্ষে টেকনাফে কোস্ট ফাউন্ডেশনের সেমিনার রামুতে সূর্যের হাসি যুব সংঘ ও প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে এসএসসিতে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা মুক্তি” কক্সবাজার কর্তৃক টেকনাফে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস পালিত

শারীরিক নির্যাতন ও মিথ্যা মামলায় হয়রানির প্রতিবাদে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৪৫ বার পঠিত
প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
কক্সবাজারের টেকনাফে জিয়াউক হক নামে একজনকে গুরুতর মারধরের অভিযোগ ওঠেছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। গেল ২৬ নভেম্বর উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুর হোসেনের নেতৃত্বে নয়াপাড়া পানবাজার এলাকায় ৭/৮জন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে দলবদ্ধভাবে অতর্কিত হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী জিয়াউল হক। শুক্রবার (২ ডিসেম্বর)  জুমার নামাজের পরে কাটাবনিয়া জামে মসজিদের মাঠে এলাকাবাসীদের সঙ্গে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এসব অভিযোগ তোলে ধরেন ভুক্তভোগী জিয়াউল হক। তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন,
২০২১ সালের ইউপি নির্বাচনে বর্তমান সরকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত নৌকার পক্ষে ভোট করায়, স্বতন্ত্র প্রার্থী নুর হোসেনের পক্ষে নির্বাচন না করায়, উপজেলার সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর হোসেন কর্তৃক জিয়াউল হককে শারিরীক নির্যাতন ও মিথ্যা মামলায় হয়রানি করেছে ।
টেকনাফ সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী
হিসেবে ছিলেন নুর হোসেন চেয়ারম্যান। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে নৌকার পক্ষে নির্বাচন করার ইস্যুকে কেন্দ্র করে তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়।
এরপরে নুর হোসেন চেয়ারম্যানের নিজ বসত ভিটায় এনে ৭ থেকে ৮ জন সন্ত্রাসী ও মাদককারবারী তাদের হাতে থাকা লোহার রড ও কাঠের লাঠি দিয়ে নুর হোসেন চেয়ারম্যানের “টর্চার সেলে” অন্ধকারে নিয়ে গিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি মেরে মারাত্মক জখম করে এবং নুর হোসেন চেয়ারম্যানের  হাতে থাকা ধারালো ছুরি দিয়া নাকে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করেন। চেয়ারম্যানের সাথে থাকা জাহেদ হোসেনের ছেলে কথিত সন্ত্রাসী ফারুক তার হাতে থাকা পিস্তল মাথায় তাক করে হত্যার চেষ্টা করে বলেও সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তুলে ধরেন।  পরে পুলিশ ও এলাকাবাসী খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করেন। এতেও চেয়ারম্যান নুর হোসেন  কান্ত না হয়ে আমাকে অস্ত্রসহ চালান করার চেষ্টা করে। তবে এলাকাবাসীর জোরপ্রতিবাদের মুখে অস্ত্রসহ মামলা দিয়ে চালান করার সুযোগ না পেলেও অদৃশ্য ক্ষমতা বলে চেয়ারম্যান তাকে মদপান করেছে বলে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারের প্রেরণ করতে সক্ষম হয়। তবে এলাকাবাসীর দোয়ায় ৪দিন পরে জামিনে আসে । এখনো নুর হোসেন চেয়ারম্যান ভূক্তভোগী জিয়াউলকে হুমকি-ধমকি দিয়ে যাচ্ছে এবং পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান । ভুক্তভোগী পরিবার প্রশাসনের নিকট এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তপূর্বক চেয়ারম্যানের উচিত বিচার দাবি করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!