বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ১০:০১ পূর্বাহ্ন

সমিতিপাড়ার ইয়াবা রফিক ও তার স্ত্রীর অত্যাচার ও ইয়াবার রমরমা ব্যবসা চলছে সমানতালে |বাংলাদেশ দিগন্ত

ক্রাইম রিপোর্টার:
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৫ মার্চ, ২০২১
  • ৩৫০ বার পঠিত

সমিতিপাড়ার ইয়াবা রফিক ও তার স্ত্রীর ইয়াবার রমরমা ব্যবসা চলছেই

ক্রাইম রিপোর্টার

কক্সবাজার শহরের ১নং ওয়ার্ডের সমিতি পাড়ার ইয়াবা রফিক ও তার স্ত্রীর রমরমা ইয়াবা ব্যবসা চলছে। শহরের কুতুবদিয়া পাড়া ফদনার ডেইলে স্বামী-স্ত্রীর মাদক ব্যবসা আবারো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। স্বামী রফিক প্রকাশ ইয়াবা রফিক ও তার স্ত্রী ইয়াবা সুন্দরী সাজু রাজনৈতিক ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে ইয়াবাসহ নানা অপরাধে জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। সমিতিপাড়ার প্রতিটি অপকর্মেই তাদের হাত রয়েছে। তাদের কারণে এলাকার সমাজ ধ্বংসের দিকে চলে যাচ্ছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা য়ায়, তারা এলাকায় ইয়াবা ব্যবসায়, সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে টাকা আদায়, চাঁদাবাজি, লুটপাট, হামলা, বানোয়াট মামলা, ইয়াবা পাচার, মানব পাচার, যৌনকর্মী নিয়ে পতিতা ব্যবসা, বিভিন্ন হোটেল-মোটেল যৌনকর্মী সরবরাহসহ নানা অপকর্মে জড়িত রয়েছে। বিশেষ করে সমাজের খারাপ ও কতিপয় যুবক-যুবতী ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের ব্যবহার করে মুলত এসব অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে তারা।
তাদের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানাসহ জেলার বিভিন্ন থানায় ইয়াবা, নারি ও শিশু নির্যাতন, মারামারিসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

তাদের অবৈধ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে কেউ কথা বললেই ইয়াবা রফিকের নেতৃত্ব চলে নির্যাতন ও অত্যাচারের মহড়া। তাদের কারণে পুরো এলাকাবাসী এখন ভীত সন্ত্রস্ত্র। এলাকায় তাদের ক্ষমতার প্রভাব এতই বেশি- সাধারণ লোকজন কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়না। বর্তমানে এই চক্রটি এতোই বেপরোয়া হয়ে পড়েছে যে প্রতিবাদতো দুরের কথা টুঁশব্দ করতেও কেউ সাহস করেনা।

প্রাপ্ত তথ্য জানা য়ায়, ২০১৮ সালে আগস্ট মাসে ২০০ পিস ইয়াবাসহ মো. রফিক (৩৭) পুলিশের জালে ধরা পড়েছিল। কারাগারে অন্তরীণ থাকার পর জামিনে বের হয়ে আবারো মরণ নেশা ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত হয়ে পড়েছে। তার পিতার নাম মৃত হাফেজ উল্লাহ। সদর মডেল থানার মামলা নং-০৬/২০১৮ ইং। রফিক ও তার স্ত্রীর নেতৃত্বে এলাকায় একটি বড় ইয়াবা সিন্ডিকেট রয়েছে। ওই সিন্ডিকেটটি এলাকায় মাদকসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত রয়েছে।

এছাড়াও তারা কমপক্ষে ৭/৮ টি ফৌজদারী মামলার আসামী। তন্মধ্যে রয়েছে, ইয়াবা পাচার, নারি ও শিশু নির্যাতন, যৌনকর্মী সরবরাহ, মারামারি ও ভাঙচুরসহ নানা অপরাধে।

স্থানীয় সূত্রে আরও জানা যায়, রফিক ও তার স্ত্রী সাজেদা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তাদের কারণে এলাকার যুব সমাজ ধ্বংসের দিকে। সাজু বেগম মো. রফিক প্রকাশ ইয়াবা রফিককে বিয়ে করার আগে আরেক জনকে বিয়ে করেছিল। ওই স্বামীর দুইটি পুত্র সন্তানও ছিল। কিন্তু মরণ নেশা মাদক ব্যবসার লোভে পড়ে সাজেদা রফিককে বিয়ে করে। তাকে বিয়ে করার পর সে এখন কোটিপতি বনে গেছে। আগে তার কিছুই ছিল না। এখন কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন স্থানে জায়গা ক্রয় করছে। এমনকি পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কুতুবদিয়া পাড়া ফদনার ডেইলেও তিনটি বাসা ভাড়া দিয়েছে রোহিঙ্গাদের। ওই রোহিঙ্গা ভাড়াটিয়া হলেন, রহিমা বেগম স্বামী হোসেন আহমদ, কাজল বেগম স্বামী আকতার হোসেন ও রোকিয়া বেগম স্বামী রবি আলম। মুলত তারাই রোহিঙ্গা রফিক ও তার স্ত্রীর ইয়াবা সুন্দরী সাজু তাদের মাধ্যমে ইয়াবা পাচার করে।

পৌর আওয়ামী লীগের ১নং ওয়ার্ডের সভাপতি আতিক উল্লাহ কোম্পানির কাছে ইয়াবা রফিক সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, ইয়াবা বিরুদ্ধে সমসময় আমি সোচ্চার। রফিক একসময় ইয়াবাসহ পুলিশের হাতে আটক হয়েছিল। এখন ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত আছে কিনা তা জানি না।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (অপারেশন) মো. মাসুম খান বলেন, ইয়াবা ব্যবসায়ী যতো বড়ই প্রভাবশালী হোক না কেন কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। যদি রফিক ও তার স্ত্রী ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত থাকে তদন্তপূর্বক তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs
error: Content is protected !!