ঢাকা ০২:২৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের দলীয় মনোনয়ন সময়মতো চূড়ান্ত করবেন আমাদের সকলের প্রিয় নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। যিনি আমাদের রাজনৈতিক জীবনের সকল আশা-আকাঙ্ক্ষার বাতিঘর।

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৩২:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৪১৭ বার পড়া হয়েছে

দৈনিক বাংলাদেশ দিগন্ত,হেলাল উদ্দিন বার্তা সম্পাদক।
একটা সংসদীয় আসনে অনেকেই মনোনয়ন প্রত্যাশী থাকে আর আমাদের নবীনগর একটি বড় উপজেলা সেই হিসেবে প্রার্থীও একটু বেশিই থাকবে! কিন্তু যোগ্যতা, সক্ষমতা ও জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে মনোনয়ন দেওয়ার আবাস দিয়েছেন আমাদের নেত্রী, সেই হিসেবে আমি নিজেকে যোগ্য দাবীদার মনে করি।

কারণ… আমি মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সন্তান।আমার পিতা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা সার্জেন্ট মুজিবুর রহমান ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সহচর ও ঐতিহাসিক আগরতলা যড়যন্ত্র মামলার আসামি। আমি আমার রাজনীতির শুরু থেকেই দলের প্রতিটি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। সবসময়ই নৌকার পক্ষে ছিলাম ও আছি। আমার নেত্রী সফল রাষ্ট্র নায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন যেই সিদ্ধান্ত দিয়েছেন সেইটা বাস্তবায়ন করাই ছিল আমার এবং আমাদের প্রথম লক্ষ। নিজে এমপি হিসেবে কতটুকু সফল সেটা আমার নির্বাচনী এলাকার জনগণ ভাল জানেন।আমি নিজের স্বার্থে কখন কোন বলয় তৈরি করিনি এবং অন্য কাউকে করতেও দেয়নি।আমার সময়ে কোন প্রকার সিন্ডিকেট ছিল না। তাছাড়া নিজে যেহেতু কোন প্রকার অন্যায়-দুর্নীতি করিনি তাই কাউকে করতেও দেয়নি এবং আগামীতেও আমার সাথে যারা চলে তারা কেউ কোন প্রকার অন্যায়,অত্যাচার, জুলুম ও দুর্নীতি করতে পারবে না।

আমাদের উপজেলার সকল স্তরে দৃশ্যমান যে উন্নয়ন হয়েছে তার পুরোটাই হয়েছে আওয়ামী লীগের শাসন আমলে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে। প্রয়াত সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট আব্দুল লতিফ ভাইয়ের আমলে শুরু হওয়া নবীনগরের উন্নয়ন যাত্রাকে আমি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি হয়ে পরিপূর্ণ রুপ দিতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি, যা এখন ধীরে ধীরে বাস্তবে রুপ নিচ্ছে। এই সকল কিছু বিচার-বিবেচনা করলে এবং আগামী নির্বাচন যেহেতু প্রতিযোগিতামূলক ও একটু ভিন্ন ধরনের হবে তাই আমি শতভাগ আশাবাদী আমিই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ২৪৭,(ব্রাক্ষণবাড়ীয়া-৫) নবীনগর আসন থেকে নৌকা প্রতীক পেয়ে দলীয় সকল নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের জনগণের আশা পূরণ করতে পারব -ইনশাআল্লাহ্।

একান্ত স্বাক্ষাৎকারে বললেন – নবীনগর আসনের সাবেক এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফয়জুর রহমান বাদল।

Facebook Comments Box

দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের দলীয় মনোনয়ন সময়মতো চূড়ান্ত করবেন আমাদের সকলের প্রিয় নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। যিনি আমাদের রাজনৈতিক জীবনের সকল আশা-আকাঙ্ক্ষার বাতিঘর।

আপডেট সময় : ০৫:৩২:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

দৈনিক বাংলাদেশ দিগন্ত,হেলাল উদ্দিন বার্তা সম্পাদক।
একটা সংসদীয় আসনে অনেকেই মনোনয়ন প্রত্যাশী থাকে আর আমাদের নবীনগর একটি বড় উপজেলা সেই হিসেবে প্রার্থীও একটু বেশিই থাকবে! কিন্তু যোগ্যতা, সক্ষমতা ও জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে মনোনয়ন দেওয়ার আবাস দিয়েছেন আমাদের নেত্রী, সেই হিসেবে আমি নিজেকে যোগ্য দাবীদার মনে করি।

কারণ… আমি মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সন্তান।আমার পিতা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা সার্জেন্ট মুজিবুর রহমান ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সহচর ও ঐতিহাসিক আগরতলা যড়যন্ত্র মামলার আসামি। আমি আমার রাজনীতির শুরু থেকেই দলের প্রতিটি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। সবসময়ই নৌকার পক্ষে ছিলাম ও আছি। আমার নেত্রী সফল রাষ্ট্র নায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন যেই সিদ্ধান্ত দিয়েছেন সেইটা বাস্তবায়ন করাই ছিল আমার এবং আমাদের প্রথম লক্ষ। নিজে এমপি হিসেবে কতটুকু সফল সেটা আমার নির্বাচনী এলাকার জনগণ ভাল জানেন।আমি নিজের স্বার্থে কখন কোন বলয় তৈরি করিনি এবং অন্য কাউকে করতেও দেয়নি।আমার সময়ে কোন প্রকার সিন্ডিকেট ছিল না। তাছাড়া নিজে যেহেতু কোন প্রকার অন্যায়-দুর্নীতি করিনি তাই কাউকে করতেও দেয়নি এবং আগামীতেও আমার সাথে যারা চলে তারা কেউ কোন প্রকার অন্যায়,অত্যাচার, জুলুম ও দুর্নীতি করতে পারবে না।

আমাদের উপজেলার সকল স্তরে দৃশ্যমান যে উন্নয়ন হয়েছে তার পুরোটাই হয়েছে আওয়ামী লীগের শাসন আমলে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে। প্রয়াত সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট আব্দুল লতিফ ভাইয়ের আমলে শুরু হওয়া নবীনগরের উন্নয়ন যাত্রাকে আমি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি হয়ে পরিপূর্ণ রুপ দিতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি, যা এখন ধীরে ধীরে বাস্তবে রুপ নিচ্ছে। এই সকল কিছু বিচার-বিবেচনা করলে এবং আগামী নির্বাচন যেহেতু প্রতিযোগিতামূলক ও একটু ভিন্ন ধরনের হবে তাই আমি শতভাগ আশাবাদী আমিই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ২৪৭,(ব্রাক্ষণবাড়ীয়া-৫) নবীনগর আসন থেকে নৌকা প্রতীক পেয়ে দলীয় সকল নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের জনগণের আশা পূরণ করতে পারব -ইনশাআল্লাহ্।

একান্ত স্বাক্ষাৎকারে বললেন – নবীনগর আসনের সাবেক এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফয়জুর রহমান বাদল।

Facebook Comments Box