ঢাকা ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন করে জলাশয় ও পুকুর ভরাট।

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:০৪:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০২৪ ১৪ বার পড়া হয়েছে

আফছানা আক্তারবিশেষ প্রতিনিধি -কুমিল্লা
কুমিল্লা হোমনা পৌরসভা এলাকার দুই নং ওয়ার্ড বাগমারা এলাকায় খাল খননের নামে পুকুর ও জলাশয় ভরাট চলছে।
হোমনা পৌরসভা এলাকার বাগমারা দুই নং ওয়ার্ড বাগমারা হইতে রামপুরা খাল খননের নামে পুকুর ও জলাশয় ভরাট করছে কতিপয় কিছু দুষ্কৃতিকারী। পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতাধীন এই খাল খনন করে বালু উত্তোলন করে টেন্ডার এর মাধ্যমে বিক্রয় করার কথা থাকলেও এর তুয়াক্কা না করে জলাশয় ও পুকুর ভরাট করছে অবাধে। জানা যায় যে মাইনুদ্দিন নামে এক ব্যবসায়ীর প্রায় ১৯২ শতক জায়গা ভরাট করা হয়েছে। সরজমিনে তদন্তকালে দেখা যায় যে ব্যক্তি মালিকানাধীন খাল ভরাট করা হচ্ছে। এসব খাল ও জলাশয় ভরাট করতে গিয়ে কৃষক দুলাল মিয়ার ৬২ শতাংশ জমির ক্ষতি সাধন ও বাবু নামের আরেক অসহায় কৃষকের খালের প্রান্তে বাড়ির জায়গা ভেঙ্গে যাওয়া যায়।এই বিষয়ে বাবু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর অভিযোগও করেছিলেন। বর্তমানে ব্যক্তি মালিকানাধীন একটি খাল ভরা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
এই বিষয়ে হোমনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ক্ষেমালিকা চাকমার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান খাল খনন করে বালু এক জায়গায় রেখে টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রয় করা হবে। বালু বিক্রয়ের টাকা সরকারি কোষাগারে জমা হবে। খাল খননের নামে যদি কোন জলাশয় কিংবা পুকুর ভরাট করা হয় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
খাল খনন সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত রয়েছে হোমনা দুই নং ওয়ার্ড পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ আব্দুল আউয়াল, ২ নং ওয়ার্ড পৌর আওয়ামী লীগ সদস্য সামসু, দুই নং ওয়ার্ড বাগমারা এলাকার আওয়ামী লীগ কর্মী পিচ্চি বাবু, হাকিম ও বাপ্পি সহ আরো অনেকে জড়িত রয়েছে।

Facebook Comments Box

ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন করে জলাশয় ও পুকুর ভরাট।

আপডেট সময় : ০১:০৪:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০২৪

আফছানা আক্তারবিশেষ প্রতিনিধি -কুমিল্লা
কুমিল্লা হোমনা পৌরসভা এলাকার দুই নং ওয়ার্ড বাগমারা এলাকায় খাল খননের নামে পুকুর ও জলাশয় ভরাট চলছে।
হোমনা পৌরসভা এলাকার বাগমারা দুই নং ওয়ার্ড বাগমারা হইতে রামপুরা খাল খননের নামে পুকুর ও জলাশয় ভরাট করছে কতিপয় কিছু দুষ্কৃতিকারী। পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতাধীন এই খাল খনন করে বালু উত্তোলন করে টেন্ডার এর মাধ্যমে বিক্রয় করার কথা থাকলেও এর তুয়াক্কা না করে জলাশয় ও পুকুর ভরাট করছে অবাধে। জানা যায় যে মাইনুদ্দিন নামে এক ব্যবসায়ীর প্রায় ১৯২ শতক জায়গা ভরাট করা হয়েছে। সরজমিনে তদন্তকালে দেখা যায় যে ব্যক্তি মালিকানাধীন খাল ভরাট করা হচ্ছে। এসব খাল ও জলাশয় ভরাট করতে গিয়ে কৃষক দুলাল মিয়ার ৬২ শতাংশ জমির ক্ষতি সাধন ও বাবু নামের আরেক অসহায় কৃষকের খালের প্রান্তে বাড়ির জায়গা ভেঙ্গে যাওয়া যায়।এই বিষয়ে বাবু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর অভিযোগও করেছিলেন। বর্তমানে ব্যক্তি মালিকানাধীন একটি খাল ভরা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
এই বিষয়ে হোমনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ক্ষেমালিকা চাকমার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান খাল খনন করে বালু এক জায়গায় রেখে টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রয় করা হবে। বালু বিক্রয়ের টাকা সরকারি কোষাগারে জমা হবে। খাল খননের নামে যদি কোন জলাশয় কিংবা পুকুর ভরাট করা হয় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
খাল খনন সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত রয়েছে হোমনা দুই নং ওয়ার্ড পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ আব্দুল আউয়াল, ২ নং ওয়ার্ড পৌর আওয়ামী লীগ সদস্য সামসু, দুই নং ওয়ার্ড বাগমারা এলাকার আওয়ামী লীগ কর্মী পিচ্চি বাবু, হাকিম ও বাপ্পি সহ আরো অনেকে জড়িত রয়েছে।

Facebook Comments Box